ত্রিভুজ কাকে বলে | ত্রিভুজের ক্ষেত্রফল

ত্রিভুজ কাকে বলে

তিভুজ: তিনটি রেখা দ্বারা সীমাবদ্ধ ক্ষেত্রকে ত্রিভুজ বলে।

ত্রিভুজের ক্ষেত্রফল

ত্রিভুজের ক্ষেত্রফল = ১/২* ভূমি * উচ্চতা

ত্রিভুজের পরিসীমা

ত্রিভুজের পরিসীমা = ত্রিভুজের তিন বাহুর যোগফল

সুতরাং এক বাহুর দৈর্ঘ্য a হলে, পরিসীমা হবে 3a

কোণ কাকে বলে এবং কোণ কত প্রকার ও কি কি

ত্রিভুজের বৈশিষ্ট্য

১। ত্রিভুজের যে কোন দুই বাহুর সমষ্টি, তার তৃতীয় বাহু অপেক্ষা বৃহত্তর।

আরো সহজ ভাবে বললে, ত্রিভুজের যে কোন দুটি বাহু যোগ করলে তা তৃতীয় বাহু অপেক্ষা বড় হতে হবে। যদি বড় না হয় তাহলে তা ত্রিভুজ হবে না।

২। ত্রিভুজের যে কোন দুই বাহুর অন্তর, তৃতীয় বাহু অপেক্ষা ক্ষুদ্রতর। অর্থাৎ ত্রিভুজের দুটি বাহু বিয়োগ করলে যেন কা তৃতীয় বাহু অপেক্ষা ছোট হয়।

৩। কোন ত্রিভুজের একটি বাহু অপর একটি বাহু আপেক্ষা বৃহত্তর হলে, বৃহত্তর বাহুর বিপরীত কোণ ক্ষ্রদ্রতর বাহুর বিপরীত কোণ অপেক্ষা বৃহত্তর হবে।

অর্থাৎ ত্রিভুজের যে বাহুটি বড় তার বিপরীত কোণটি ও বড় হবে।

৪। কোন ত্রিভুজের সমান সমান বাহুর বিপরীত কোণগুলো ও পরস্পর সমান। অর্থাৎ যদি একটি ত্রিভুজের দুটি বাহু পরস্পর সমান হয়, তাহলে তাদের বিপরীত কোণদ্বয় ও সমান হবে।

৫। কোন ত্রিভুজের সমান সমান কোণের বিপরীত বাহুগুলোও পরস্পর সমান। অর্থাৎ ত্রিভুজের দুটি কোণ সমান হলে তাদের বিপরীত বাহুগুলোও সমান হয়।

৬। ত্রিভুজের তিনটি কোণের সমষ্টি দুই সমকোণ বা ১৮০ ডিগ্রি।

ত্রিভুজ কত প্রকার ও কি কি

কোণভেদে ত্রিভুজ তিন প্রকার যথা:-

(ক) সমকোণী ত্রিভুজ

(খ) সূক্ষ্মকোণী ত্রিভুজ

(গ) স্থূলকোণী ত্রিভুজ

বাহুভেদে ত্রিভুজ তিন প্রকার যথা:-

(ক) সমবাহু ত্রিভুজ

(খ) সমদ্বিবাহু ত্রিভুজ

(গ) বিষমবাহু ত্রিভুজ

Share this

Leave a Comment

Your email address will not be published.